ফেসবুক আইডি হ্যাক হওয়ার কারণ ও প্রতিকার


ফেসবুক হ্যাক





প্রযুক্তির এই যুগ এ ফেসবুক ব্যবহার করে না এমন মানুষ খুজে পাওয়াই মুশকিল। ছেলে বুড়ো থেকে শুরু করে প্রায় সবাইকে এই ভার্চুয়াল এপস টি ব্যবহার করতে দেখা যায়। এর যেমন রয়েছে সুফল তেমনি কুফল ও রয়েছে। ভুল ব্যবহার এ হ্যাক হতে পারে আপনার আইডিটি, খোয়া যেতে পারে মূল্যবান তথ্য৷ তাই চলুন জেনে নেই ফেসবুক আইডি হ্যাক হওয়ার কারণ ও প্রতিকারগুলো।


১/ খুব সাধাণত পাসওয়ার্ড দেওয়া, যা সহজেই বের করা যায়। যেমন- ১২৩৪৫৬৭৮, আপনার নাম, আপনার জন্মসাল অথবা আপনার ফোন নাম্বার। এইগুলো যে কেউ চিন্তা করে বের করতে পারবে তাই এগুলো পাসওয়ার্ড দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।

২/ যে কারো দেওয়া লিংক এ না দেখে ক্লিক করে দেওয়া। এইভাবে আজকাল সবচেয়ে বেশি আইডি হ্যাক হয়। কারো পাঠানো লিংক এ না দেখে ভুলেও ক্লিক করবেন না। যেমন 
এই লিংক এ ক্লিক করলে বিকাশে ১০০০ টাকা পাবেন বা আইফোন প্রো ম্যাক্স পাবেন এইসব জাতীয় লিংক এ ভুলে ও ক্লিক করবেন নাহ।

৩/ অন্য কারো ডিভাইস বা কম্পিউটার এ আইডিটি লগইন করে রেখে দেওয়া। প্রয়োজনে অন্য কারো ডিভাইস এ আইডিটি  লগিন দিলে, কাজ শেষ হওয়ার পর লগআউট দিয়ে আপনার আইডিটাও রিমুভ করে দিবেন ঐ ডিভাইস বা কম্পপিউটার থেকে।

      



৪/ জিমেইল আইডি অন্যের সাথে শেয়ার করা। এই ভুলটা অনেকেই করে থাকে, আপনার ফেবুর সাথে এডড করা জিমেইল ভুলেও আর কাউকে ব্যবহার করতে দিবেন না। কারণ সে চাইলেই রিসেট পাসওয়ার্ড মেরে আপনার ফেবু হ্যাক করে নিতে পারবে।

৫ / আননোন সোর্স থেকে ইনস্টল করা এপস কে ফেইবুক এর ডাটার পারমিশন দেওয়া। যদি প্লে ষ্টোর ছাড়া কোনো এপস ব্যবহার করেন তাহলে খেয়াল রাখবেন এপসটি কিকি পারমিশন চাচ্ছে। এমনটা যেনো না হয় যে ক্যালকুলেটর আপনার কাছে ফেইসবুক ডাটা এক্সেস এর পারমিশন চায়🙄😁 তাই একটু চালাক হোন।

৬/ আইডি সুরক্ষিত রাখতে পাসওয়ার্ড টিতে লেটার + নাম্বার ব্যবহার করুন, পারলে ছোটো বড়ো লেটার মিক্স করে দিন। যাতে সহজেই আপনার পাসওয়ার্ডটি ক্রাক করা যায় নাহ।

৭/ ৩ জন টাস্টেড কন্টাক্ট এডড করে রাখুন। পরে আইডিতে কোনো জামেলা হলে এরা আপনাকে সাহায্য করতে পারবে। যদি আপনার আইডি কোনো কারণে ভেরিফাই এ পড়ে তাহলে এরা আপনাকে সাহায্য করতে পারবে। 

৮/ আপনি যদি আপনার প্রাইভেসী নিয়ে খুবই সেনসেটিভ হোন তাহলে ফেসবুক এর setting(সেটিং) অপশন থেকে সিকিউরিটি এন্ড লগিন(security and login)  অপশনে গিয়ে (টু ফ্যাক্টর এথেনটিফিকেশন) ফিচারটি অন করে দিন এতে যখনই কেউ অন্য ডিভাইসে আপনার আইডিটি লগিন করতে চাইবে তখন আপনার নাম্বারে একটি কোড চলে আসবে।  এবং আপনি নিচে আরেকটি ফিচার পাবেন যার নাম  (Get alart about Unauthorized logins) এটি অন করে দিন। এর ফলে অন্য কেউ আপনার আইডিতে
ঢুকতে চাইলে আপনার ফোন এ নোটিফিকেশন আসবে।

৮/ গার্লফেন্ড এর নাম দিয়ে পাসওয়ার্ড দেওয়া থেকে বিরত থাকুন😁😂 কারণ আপনার ব্রেকআপ হলে আইডির ও ব্রেকআপ হয়ে যেতে পারে। আর এটা সহজেই অনুমান করে নেওয়া যায়।

৯/ আপনি সিকিউরিটি এন্ড লগিন অপশন থেকে দেখতে পারবেন কোন কোন ডিভাইস দিয়ে আপনার আইডিটি লগিন করা হয়েছে।এবং বর্তমানে কোন কোন কোন ডিভাইসে লগিন আছে। অপরিচিত ডিভাইস থাকলে সঙ্গে সঙ্গে আপনার পাসওয়ার্ডটি বদলে ফেলুন। এবং অপরিচিত ডিভাইস টি রিভুব করে দিন।

১০/ ফেসবুক এ কখনো পারসোনাল ইনফোরমেশন শেয়ার করবেন নাহ।যেমন আপনার NID কার্ড এর ইনফরমেেশন। এই সব তথ্য দিয়ে হ্যাকার সহজেই আপনার ফেসবুক আইডির ক্ষতি করতে পারে। আজ এই পর্যন্ত সবাইকে ধন্যবাদ।
Edit

কোন মন্তব্য নেই

luoman থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.