(Bitcoin) বিটকয়েন কি? এটি কিভাবে কাজ করে? #Online_Money

ক্রিপ্টোকারেন্সি (Cryptocurrencie) একধরণের ডিজিটাল মুদ্রা  যা বিনিময় এর মাধ্যম হিসেবে কাজ করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।  ক্রিপ্টোকারেন্সি হলো ডিজিটাল মুদ্রা, যা বিকল্প মুদ্রা অথবা ভার্চুয়াল (Virtual coin) মুদ্রা হিসেবেও পরিচিত।  প্রতিটি ক্রিপ্টোকারেন্সির  নিয়ন্ত্রণ ব্লকচেইনের (Blockchain) মাধ্যমে কাজ করে।বর্তমানে সবচেয়ে বহুল ব্যবহৃত এবং জনপ্রিয় ক্রিপ্টোকারেন্সি হল বিটকয়েন। এছাড়াও মার্কেটে ইথেরিয়াম, লাইটকয়েন ইত্যাদি ক্রিপ্টোকারেন্সি রয়েছে যা জনপ্রিয়।

- বিটকয়েন( Bitcoin) হচ্ছে বর্তমান ক্রিপ্টোকারেন্সি দুনিয়ার সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় এবং ব্যবহৃত ডিজিটাল মুদ্রা যা বিশ্বব্যাপী লেনদেনের মাধ্যম হিসেবে পরিচিত।  ডিজিটাল মুদ্রার মধ্যে বিটকয়েন সর্বপ্রথম কারণ এটি প্রথম যা কোন কেন্দ্রীয় ব্যাংক বা একক প্রশাসক ছাড়া কাজ করে।।

- বিটকয়েন একজন অজানা ব্যক্তি  দ্বারা আবিষ্কৃত হয়। আবিষ্কারকের নাম দেওয়া হয় সাটোসি নাকামোটো(ছদ্দনাম)। এটি খোলা বাজারে ২০০৯ সালে ছাড়া হয়। মাইনিং প্রসেসের মাধ্যমে বিটকয়েন তৈরি করা হয়। 

- দুই হাজার নয় সালে যখন এটি আবিষ্কার হয়েছিল তখন এর জনপ্রিয়তা এতোটা হবে কল্পনা করা হয়নি। একটি তথ্য অনুসারে আপনি যদি ২০০৯ সালে বিটকয়েনে শুধু ৮০০০ টাকা বিনিয়োগ করতেন, তাহলে বর্তমানে সেই বিনিয়গের মূল্য হত প্রায় ২৫০ কোটি টাকা। এথেকেই বুঝা যায় বর্তমানে ক্রিপ্টোকারেন্সি জগতে বিটকয়েনের মূল্য এবং জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বি।

- বিটকয়েন নেটওয়ার্কটি কোনো কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয় না। প্রতিটি মেশিন যা বিটকয়েন মাইনিং করে এবং লেনদেন প্রক্রিয়া সচল রাখে তা নেটওয়ার্কের একটি অংশ হিসেবে ধরা হয় এবং সব মাইনিং মেশিন একসাথে কাজ করে থাকে।  এতে কোনো কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষ এই মুদ্রানীতিতে জালিয়াতি করতে পারবে না।তাই এটি একটি নিরাপদ প্রক্রিয়া বলে ধরা হয়।

- সাধারণ ব্যাংক একাউন্টের তুলনায় বিটকয়েন একাউন্ট খোলা করা অনেক সহজ। যার কম্পিউটার এবং অনলাইনে কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে তিনি খুব সহজেই বিটকয়েন একাউন্ট খুলতে পারবেন।এবং এই একাউন্ট খোলার জন্য কোনো প্রকার ফি দেওয়া লাগে না। তাই এটি সহজলভ্য। 

-আন্তর্জাতিক মুদ্রা বিনিময়ের জন্য একধরণের ট্র্যান্সফার ফি প্রদান করতে হয় এবং বেশীরভাগ  ক্ষেত্রে এর জন্য অনেক বেশী ফি দিতে হয়। কিন্তু বিটকয়েন( Bitcoin) এর ক্ষেত্রে অনেক কম খরচে লেনদেন করা যায়। যা এটিকে জনপ্রিয় করে তোলার অন্যতম  একটি কারণ।

-বিটকয়েন ( Bitcoin) এর সিস্টেম অনেক তাড়াতাড়ি কাজ করে। আপনি মানি টান্সফার করার কয়েক মিনিটের মধ্যে তা পৌছে যাবে অন্য সার্ভারে। বিটকয়েন নেটওয়ার্ক পেমেন্ট ব্যবস্হা খুব দ্রুততার সাথে কাজ সম্পন্ন করে। এজন্য অনেকেই তাদের প্রাতিষ্ঠানিক লেনদেনের জন্য বিটকয়েন ব্যবহার করেন।

- তাছাড়া এখন আপডেট নিউজ হচ্ছে  ইউনাইটেড স্টেট ওব আমেরিকা তাদের স্টক মার্কেটে এ  বিটকয়েন বা ডিজিটাল মানি ব্যবহার এর অনুমতি দিয়েছে এবং বিটকয়েন এর স্টক শেয়ার ও আকাশচুম্বী।  

- বর্তমানে ধীরে ধীরে টাকার নোট এর চেয়ে অনলাইন কারেন্সী বা ডিজিটাল মুদ্রার ব্যবহার অনেক হারে বেড়ে গিয়েছে। সামনে হয়তো এমন দিন ও আসবে যেখানে লেনদেন এর একমাত্র ও অন্যতম মাধ্যম হবে ক্রিপ্টোকারেন্সি।


Edit

কোন মন্তব্য নেই

luoman থেকে নেওয়া থিমের ছবিগুলি. Blogger দ্বারা পরিচালিত.